হাটহাজারীতে বিষপান করে দুই সন্তানের জননীর আত্মহত্যা

0
43

হাটহাজারী (চট্টগ্রাম) প্রতিনিধিঃ চট্টগ্রামের হাটহাজারীতে মুঠোফোনে সন্তানের প্রতি খেয়াল রাখার পরামর্শ দিয়ে ও ক্ষমা চেয়ে স্বামীর সাথে কথা বলার পর মর্জিনা আক্তার (২৭) নামের এক গৃহবধূর বিষপানে মৃত্যু হয়েছে।বুধবার (২২ই সেপ্টেম্বর) রাত ৯টার দিকে পৌরসভার আদর্শ গ্রাম এলাকার ২নং সড়ক দক্ষিণ পাহাড় কেন্দ্রীয় জামে মসজিদ সংলগ্ন বাড়ীর স্বামীর ঘরে বিষপাণ করেছে বলে পরিবার সুত্রে জানা যায়। মর্জিনা আক্তার দুই সন্তানের জননী।

পরিবার ও থানা সুত্রে জানা যায়, বুধবার রাতে স্বামী ও স্ত্রীর মধ্যে ঝগড়া হয়। ঝগড়াঝাঁটির এক পযার্য়ে স্ত্রী মর্জিনা পরিবারের অজান্তে বিষপান করে। তার স্বামী বিষয়টি বুঝতে পেরে দ্রুত উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের জরুরি বিভাগে নিয়ে যায়। পরে অবস্থার অবনতি ঘটলে কর্তব্যরত চিকিৎসক তাকে চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ (চমেক) হাসপাতালে প্রেরন করে। চমেকে নেওয়ার পর কর্তব্যরত চিকিৎসক মর্জিনাকে মৃত ঘোষণা করেন।

এ দিকে মর্জিনার ছোট ভাই মনজুরুল ইসলাম বাবুর সাথে মুঠোফোনে যোগাযোগ করলে সে প্রতিবেদক কে বলেন, আমার বড় বোনকে দীর্ঘদিন স্বামীর বাড়িতে নিযার্তন করত। সংসার শান্তিতে রাখতে আমরা বোনকে বিভিন্ন ভাবে শান্তনা দিয়ে থাকি। আমার বোন বিষপাণ করেছে বলে শশুর বাড়ী থেকে খবর পেয়ে দ্রুত মেডিকেলে আসি। পরিবারের সাথে পরামর্শ করে আমার বোনের বিচারের দাবি করে আইনানুগত প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহনের সিদ্ধান্ত নেব।

নিহতের স্বামী মহিউদ্দিনে কাছে মুঠোফোনে জানতে চাইলে তিনি বলেন, সন্ধা বেলায় একটি হাসের বাচ্চার বিষয় নিয়ে ঘরে আমার স্ত্রীর সাথে ঝগড়া হয়। রাগের বর্হিভূত হয়ে তাকে দুটি থাপ্পর দিয়েছি। পরে ঘর থেকে বের হয়ে আমি পার্শ্ববর্তী একটি চায়ের দোকানে চলে যায় চা পাণ করতে। কিছুক্ষণ পরে আমার স্ত্রী মোবাইলে কল দিয়ে বলে আমি বিষ খেয়েছি। আমার ছেলে মেয়েদের দেখে রেখ, আমাকে মাফ করে দাও। এরপর আমি দ্রুত ঘরে গিয়ে তাকে বিষপাণ অবস্থায় দেখে তড়িঘড়ি করে হাসপাতালে নিয়ে যায়,

কিন্তু ডাক্তার বলে সে মারা যায়। এ বিষয়ে মডেল থানার পুলিশ ইন্সপেক্টর (তদন্ত) রাজিব শর্মা বলেন, বিষপানে গৃহবধু নিহতের খবর পেয়েছি। পবিারের পক্ষ থেকে এখনো কোন অভিযোগ করেনি। অভিযোগ পেলে ও ময়না তদন্তের পর আইনানুগত ব্যবস্থা গ্রহন করা হবে।

মো. সাহাবুদ্দীন সাইফ 

মতামত দিন

Please enter your comment!
Please enter your name here