হাটহাজারীতে জোরপূর্বক দোকান দখলের চেষ্টায় ভাইয়ের বিরুদ্ধে থানায় অভিযোগ

0
276
0 Shares

হাটহাজারী (চট্টগ্রাম) প্রতিনিধিঃ চট্টগ্রামের হাটহাজারীতে ভয়ভীতি দেখিয়ে জোরপূর্বক দোকান দখলের চেষ্টা ও ব্যবসা করতে দিবেনা বলে হুমকি প্রদানের অভিযোগ এনে আপন ভাইয়ের বিরুদ্ধে মামলা। সোমবার (২৩শে মে) উপজেলার চৌধুরীহাট এলাকার দাতারাম সড়কের ইয়াছিন স্টোর নামের এক মুদির দোকানের স্বত্বাধিকারী মোহাম্মদ কামাল তার তিন ভাইসহ চারজনের নাম উল্লেখ করে আরো ৪-৫ জনকে অজ্ঞাতনামা দিয়ে হাট হাজারী মডেল থানায় একটি অভিযোগ দায়ের করে।

অভিযুক্তরা হলেন, উপজেলার ১৩নং দক্ষিণ মাদার্শা ইউনিয়নের ৪নং ওয়ার্ড এলাকার সারজেন বাড়ীর মরহুম মোহাম্মদ ইসমাইল সওদাগরের ছেলে মোহাম্মদ শফি (৫০), মোহাম্মদ ইকবাল (৪৭), মোহাম্মদ রাশেদ (৩৫) ও উপজেলার চিকনদন্ডী ইউনিয়নের চৌধুরী হাট এলাকার মরহুম মনু মিয়ার ছেলে মোহাম্মদ রফিকুল ইসলাম (৬০)। অভিযোগ সূত্রমতে জানাগেছে, মরহুম মো. মুসলেম সওদাগরের পুত্র মোহাম্মদ আমিনুর রহমানের মালিকানাধীন চৌধুরী হাট এলাকায় চিকনদন্ডী মৌজার আর, এস, ৬৩০১ ও ৬৩০২ দাগের আন্দরে স্থাপিত দোকানগৃহে মাসিক ৫,০০০/- (পাঁচ হাজার) টাকা ভাড়া প্রদান পূর্বক

‘ইয়াছিন ষ্টোর’ নামের ব্যবসা প্রতিষ্ঠান পরিচালনা করে আসছে বাদী মোহাম্মদ কামাল। তার পূর্বে কার আনু মানিক ৩০ থেকে ৩৫ বছর ঐ দোকানে ব্যবসা করছিলেন তাদের পিতা মরহুম মোহাম্মদ ইসমাইল সওদাগর।বেআইনিভাবে মালিকানা দাবী করে জোরপূর্বক দোকান দখলের চেষ্টা চালায়, এবং ব্যবসা পরিচালনা করিতে দিবে না বলে বিভিন্ন ভাবে ভয়ভীতি ও হুমকী প্রদান করিয়া আসিতেছে বলে দাবী করেন কামাল।এ বিষয়ে অভিযুক্ত মোহাম্মদ শফি বলেন, আমার বাবা ইসমাইল সওদাগর জীবদ্দশায় ছোটভাই মোহাম্মদ ইয়াছিন ঐ দোকান পরিচালনা করছিলো, ২০১৮ সালে বাবা মারা যাওয়ার পর আমাদের না জানিয়ে জমিদারের সাথে বসে কামাল নিজের নামে কাগজপত্র তৈরি করে।

যার কারণে আমাদের অন্য ভাইয়েরা ঐ দোকান থেকে বঞ্চিত হয়েছে। আমাদের মা’র নামে কাগজপত্র তৈরি করার প্রস্তাব করেছিলাম যাতে সবাই সেই ব্যবসা প্রতিষ্ঠানে বসতে পারে। জোরপূর্বক দোকান দখলের চেষ্টার বিষয়টি অস্বীকার করে তিনি আরো বলেন, না আমরা দোকান দখল করার জন্য যায়নি, আমরা গিয়েছিলাম দোকানের কাগজপত্র তৈরিকরণের বিষয়ে তার সাথে কথা বলতে। তবে এই বিষয়ে যেহেতু থানায় অভিযোগ হয়েছে, প্রশাসন বা বাজার ব্যবসায়ী সমিতি যে সিদ্ধান্ত দিবে তা মেনে নিবো।

এদিকে চৌধুরী হাট বাজার ব্যবসায়ী কল্যাণ সমিতির সভাপতি মোহাম্মদ ইসহাক ও পার্শ্ববর্তী ব্যবসায়ীদের সাথে কথা বলে জানাগেছে ১৯৭২ সাল থেকে তাদের পিতা মরহুম ইসমাইল সওদাগর সেই দোকানে চায়ের দোকান পরিচালনা করতো, বিগত ১৪বছর যাবৎ কামাল মুদির দোকান পরিচালনা করে আসছে, জমিদারের সাথে তার একাধিকবার চুক্তিপত্র হয়। দোকানটি কামাল ভাড়াটিয়া হিসেবে পরিচালনা করছে। যদি সালামী বা জায়গার মালিক হইতো তাহলে ভাইদের মধ্যে ভাগ বণ্টনের বিষয় থাকতো কিন্তু বিষয়টি এমন না। তার পরেও ব্যবসায়ী সমিতি থেকে বলা হয়েছে তার ভাই মোহাম্মদ রাশেদ বেকার রয়েছে তাকে তিন মাস আর্থিকভাবে সহায়তা করার জন্য, সে তাও করেছে।

এখন অভিযুক্তরা আর ব্যবসায়ী সমিতি সিদ্ধান্ত মানছেন না বলেও জানা ব্যবসায়ী সমিতির সভাপতি ইসহাক। তিনি আরো বলেন, দোকান কে পাবে বা কে পাবেনা বিষয়টি ঠিক করবেন জমিদার, এখন জমিদার যে সিদ্ধান্ত দিবে তাই চূড়ান্ত হবে। জমিদার মোহাম্মদ আমিনুর রহমানের কাছে জানতে চাইলে তিনি প্রতিবেদককে বলেন, দীর্ঘ ১৪ বছর ধরে দোকান করে আসছে কামাল তাই আমি কামালকে ছাড়া আর কাউকে চিনি না। আমার বাবা বেঁচে থাকতে তাদের সাথে যে চুক্তি স্বাক্ষর হয়েছে তার মেয়াদ অনেক আগেই শেষ হয়ে গেছে। নতুন করে এগ্রিমেন্ট পেপারে তিন বছরের জন্য চুক্তি স্বাক্ষরিত হয়েছে,

যদি কামাল দোকান না চালায় তাহলে সেই দোকান আমরা করবো, তারপরও কাউকে দিবো না। দোকানে কেউ ঝামেলা করলে সাথে সাথে আইনগত ব্যবস্থা নিবে বলেও জানান তিনি। অভিযোগের সত্যতা শিকার করে মডেল থানার এস আই প্রদীপ বলেন, দোকান দখলের বিষয়ে একটি অভিযোগ দায়ের হয়েছে, ঝামেলাটি তাদের পারি বারিক, জটিলতা নিরসনে আইনি প্রক্রিয়া অনুযায়ী প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ গ্রহণ করা হবে।

মো. সাহাবুদ্দীন সাইফ

0 Shares

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here