সান্তাহারে চাঁদাবাজীর মামলায় ছাত্রলীগ নেতা গ্রেপ্তার

0
180
ফাইল ছবি
0 Shares

আদমদীঘি (বগুড়া) প্রতিনিধিঃ বগুড়ার আদমদীঘি থানায় দায়ের করা চাঁদাবাজি ও মারপিটের মামলায় পুলিশ মারুফ হাসান রবিন নামের এক ছাত্রলীগ নেতাকে গ্রেপ্তার করেছে। মারুফ হাসান রবিন সান্তাহার পৌর ছাত্রলীগের যুগ্ন সম্পাদক। বুধবার রাতে সান্তাহার পৌর শহরের তার নিজ বাসা থেকে তাঁকে গ্রেপ্তার করে থানা পুলিশ। বৃহস্পতিবার সকালে তাকে আদালতের মাধ্যমে বগুড়া কারাগারে পাঠানো হয়েছে। মারুফ হাসান রবিন আদমদীঘি উপজেলা আওয়ামীলীগের মুক্তিযোদ্ধা বিষয়ক সম্পাদক আনছার আলীর ছেলে।
মামলার এজাহার সূত্রে জানা গেছে, সান্তাহার পৌর শহরের ইয়ার্ড কলোনী মহল্লার মাছ ব্যবসায়ি মো. নুরুর কাছে ছাত্রলীগ নেতা মারুফ হাসান রবিন ৫০ হাজার টাকা চাঁদা দাবি করে। চাঁদা দিতে অস্বীকার করায় মারুফ হাসান রবিন নুরু এবং তাঁর পরিবার কে হত্যা করার হুমকি দেয়। এর জের ধরে গত ৯ তারিখ রোববার রাতে নুরুর ছেলে মেরাজ হোসেন (২২) বাড়ি ফেরার সময় সান্তাহার শহরের হার্ভে সরকারি বালিকা বিদ্যালয়ের পাশে রাস্তায় মারুফ হাসান রবিন তাঁর দলবল নিয়ে মেরাজের ওপর অর্তকিতে হামলা চালায়। এ সময় দুর্বৃত্তদের মারপিট ও হামলায় মেরাজ গুরুতর আহত হয়ে রাস্তায় লুটিয়ে পরলে মারুফ তাঁর দলবল নিয়ে পালিয়ে যায়। এ সময় দুর্বৃত্তরা মেরাজের নিকটে থাকা ২৫ হাজার টাকা লুট করে নেয়। পরে স্থানীয় লোকজন মেরাজ কে উদ্ধার করে নওগাঁ সদর হাসপাতালে ভর্তি করে দেয়।
এ ব্যাপারে মেরাজের বাবা মো. নুরু বলেন, দেশীয় অস্ত্রের আঘাতে মেরাজের মাথা ও শরীরের বিভিন্ন অংশ একাধিক ক্ষত বিক্ষত হয়। তাঁর মাথায় ১০টি সেলাই দেয়া হয়েছে। এ ঘটনায় মেরাজের বাবা মারুফ হাসান রবিন সহ সাত জনকে আসামী করে আদমদীঘি থানায় একটি মামলা দায়ের করেন। এর প্রেক্ষিতে আদমদীঘি থানা পুলিশ বুধবার রাতে সান্তাহার শহরে অভিযান চালিয়ে মারুফ হাসান রবিন কে গ্রেপ্তার করে।
আদমদীঘি থানার উপ-পরিদর্শক রবিউল ইসলাম মারুফ হাসান রবিন কে গ্রেপ্তারের বিষয়টি নিশ্চিত করে বলেন মামলার অন্যান্য আসামীদের গ্রেপ্তারের জোর চেষ্টা চলছে।

সাগর খান / দৈনিক সংবাদপত্র 

0 Shares

পোস্ট টি সম্পর্কে আপনার মতামত জানানঃ