সত্যজিৎ রায়ের ‘অপরাজিত সত্যজিৎ’-এ ববিতা

0
56

গত ২১ মে ছিল বিশ্ববরেণ্য এ চলচ্চিত্র নির্মাতার প্রয়াত সত্যজিৎ রায়’র ১০০তম জন্ম দিন। কিংবদন্তি এই চলচ্চিত্রকারকে নিয়ে নিজের অনুভূতি একটি বই তুলে ধরেছেন আরেক কিংবদন্তি অভিনেত্রী ববিতা।  শততম জন্ম বার্ষিকী উপলক্ষ্যে বিশ্বখ্যাত এ চলচ্চিত্রকারের প্রতি বিশেষ শ্রদ্ধা জানিয়ে গত ২৬ আগস্ট প্রকাশিত হলো ‘অপরাজিত সত্যজিৎ’ নামে একটি বই। এটি প্রকাশ করেছে ভারতের কলকাতার কল্যাণী বিশ্ববিদ্যালয়ের জার্নালিজম অ্যান্ড মাস কমিউনিকেশন সেন্টার।

সত্যজিৎ রায়ের ‘পথের পাঁচালী’ মুক্তি পেয়েছিল ১৯৫৫ সালের ২৬ আগস্ট। তাই বইটিও জন্ম দিনে প্রকাশ না করে তার প্রথম সিনেমার মুক্তির দিনটিতে প্রকাশ করা হয়। এ বইতে সত্যজিৎ রায়কে নিয়ে লিখেছেন বাংলাদেশ, ফ্রান্স, যুক্তরাষ্ট্র, ইংল্যান্ড, জাপান, জার্মানি, কানাডা ও ভারতের ৫৫ জন বিশিষ্ট লেখক। বাংলাদেশ থেকে একমাত্র নন্দিত নায়িকা ববিতা লেখার সুযোগ পেয়েছেন। বইটির ভূমিকা লিখেছেন সত্যজিতের আরেক নায়িকা শর্মিলা ঠাকুর। এমন একটি বইয়ের অংশ হতে পেরে এবং বইটিতে সত্যজিৎকে নিয়ে কিছু লিখতে পেরে ভীষণ গর্বিত ববিতা। বর্তমানে এ অভিনেত্রী কানাডা অবস্থান করছেন।

সেখান থেকে মোবাইল ফোনে বলেন, বিশ্ববরেণ্য চলচ্চিত্র নির্মাতা সত্যজিৎ রায়ের সিনেমায় কাজ করে আমি নিজেকে সৌভাগ্যবতী মনে করি। বাংলাদেশের একজন মেয়ে হিসাবে সারা বিশ্বে আমি পরিচিত লাভ করেছি শুধু তার সিনেমায় অভিনয় করেই। তার জন্যই আমি বার্লিন, সোভিয়েত ইউনিয়ন, মস্কোসহ আরও আন্তর্জাতিক চলচ্চিত্র উৎসবে অংশগ্রহণ করেছি। আমার দেশ আজও আমাকে নিয়ে সত্যজিৎ রায়ের চলচ্চিত্রে কাজ করার জন্যই গর্ব অনুভব করে।

তিনি আরও বলেন, এখনো আমার বাড়ির প্রতিটি জায়গায় মানিক দা’র (সত্যজিৎ রায়) ছবি শোভা পাচ্ছে। তিনি আমার আপনজন। প্রতিদিন সকালে ঘুম থেকে উঠে আমি তার ছবিগুলো এখনো বেশ আগ্রহ নিয়ে একাগ্রচিত্তে দেখি। আত্মীয়স্বজনকে বলেছি, মৃত্যুর পর আমার বাড়ি যেন বিক্রি বা ভাড়া না দেওয়া হয়। মানিক দা’র এ স্মৃতিগুলো আমি আমার ভক্তদেরও চিরদিন দেখাতে চাই। অনেক অনেক কৃতজ্ঞতা-ভালোবাসা রইল কল্যাণী বিশ্ববিদ্যালয়ের জার্নালিজম অ্যান্ড মাস কমিউনিকেশন সেন্টারের প্রতি, যারা ভীষণ আন্তরিকতা নিয়ে বইটি প্রকাশ করেছেন।

এদিকে ববিতা কানাডা থেকে কিছুদিনের জন্য আমেরিকা যাবেন বলে জানিয়েছেন। এরপর কানাডায় ফিরে দেশে আসার সিদ্ধান্ত নেবেন।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here