শহীদ সাইফুল হত্যাকাণ্ডের দীর্ঘ ৮বছরেও কেউ গ্রেফতার হয়নি

0
224
0 Shares

হাটহাজারী (চট্টগ্রাম) প্রতিনিধিঃ চট্টগ্রামের হাটহাজারীতে আহলে সুন্নত ওয়াল জামাতের আক্বীদা ও আদর্শের একমাত্র জাতীয় সংগঠন বাংলাদেশ ইসলামী ছাত্রসেনা ফতেপুর ইউনিয়ন শাখার সাবেক দফতর সম্পাদক মেধাবী ছাত্রনেতা শহীদ মোহাম্মদ সাইফুল ইসলাম হত্যাকাণ্ডের দীর্ঘ ৮বছর অতিক্রম হলেও এখনো কোন আসামী গ্রেফতার হয়নি বলে জানান বাংলাদেশ ইসলামী ফ্রন্টের নেতৃবৃন্দরা। সোমবার ৩রা মে বিকেল ৪টার দিকে উপজেলার ফতেপুর ইউনিয়নের হেলাল চৌধুরী পাড়া কেন্দ্রীয় ঈদগাহ সংলগ্ন কবরস্থানে শহীদ মোহাম্মদ সাইফুল ইসলামের অষ্টম শাহাদাৎ বার্ষিকী উদযাপন উপলক্ষে কবর জিয়ারত ও পুষ্পাঞ্জলি অর্পণ করে।

এসময় বাংলাদেশ ইসলামী ফ্রন্টের নেতৃবৃন্দরা বলেন, দীর্ঘ আট বছর অতিক্রম হলেও এখনো পর্যন্ত শহীদ সাই ফুলের নির্ধারিত তালিকাভুক্ত আসামি গ্রেপ্তার হয়নি, তার জন্য আমরা তীব্র ক্ষোভ ও দুঃখ প্রকাশ করছি সেই সাথে আমরা প্রশাসনের কাছে দাবি জানাচ্ছি সেই দিন ২০১৩ সালের ২৬শে এপ্রিল চট্টগ্রামের জমিয়তুল ফালাহ জামে মসজিদের খতিবের উপর হামলা এবং হাটহাজারীতে আল্লামা গাজী ইমাম শেরে বাংলা (রহঃ) মাজার ভাঙচুরের পর হাটহাজারী ১১মাইল এলাকায় আমাদের সেই নিরীহ কর্মী সাইফুল ইসলামকে আঘাতের পর আঘাত করে হেফাজতের জঙ্গীরা নির্মমভাবে শহীদ করেছে,

খতিবের উপর হামলাসহ মাজার ভাঙচুর ও সাইফুল হত্যাকাণ্ডে জড়িত নির্ধারিত খুনিদের অনতিবিলম্বে গ্রেপ্তার করে আইনের আওতায় আনার জন্য আমরা হাটহাজারী প্রশাসনের কাছে জোর দাবি জানাচ্ছি। হেফাজতে ইসলামকে জঙ্গী আখ্যা দিয়ে নেতৃবৃন্দরা আরো বলেন, স্বাধীনতার সুবর্ণ জয়ন্তী ২৬শে মার্চের ঘটনায় প্রমাণিত হয়েছে যে হেফাজতীরা জঙ্গি সংগঠন, তারাই দেশে অশান্তি সৃষ্টি করছে, স্বাধীনতার সময় স্বাধীনতাবিরোধী তারাই ছিল, যখন স্বাধীনতা চলছিল তখন তারা বাংলাদেশের বিরোধিতা করে এদেশের মা-বোনের ইজ্জত হরণ করেছিল সেটা আজ প্রমাণিত হয়েছে,

সরকার এতদিন তাদের লালন পালন করলেও এখন তা বুঝতে পেরেছে। বাংলাদেশ ইসলামী ফ্রন্টের কেন্দ্রীয় সদস্য মাষ্টার মোহাম্মদ আবুল হোসেন, চট্টগ্রাম উত্তর জেলার প্রচার ও প্রকাশনা সম্পাদক মুফতি মোহাম্মদ জামাল উদ্দিন আল কাদেরী, হাটহাজারী উপজেলার যুগ্ম সম্পাদক মোহাম্মদ সেকান্দর মিঞা, উপজেলা যুব সেনার সভাপতি মোহাম্মদ ওয়াহিদুল আলম, পৌরসভা যুবসেনার সাধারণ সম্পাদক মোহাম্মদ নাছির উদ্দিন রুবেল, ফতেপুর ইউনিয়ন যুবসেনার সাধারণ সম্পাদক হাফেজ মোহাম্মদ জয়নাল আবেদীন, চট্টগ্রাম বিশ্ব বিদ্যালয় ছাত্রসেনার সাবেক সাংগঠনিক সম্পাদক মোহাম্মদ হেলাল উদ্দিন,

উত্তর জেলা ছাত্রসেনার সাবেক দফতর সম্পাদক মোহাম্মদ আব্দুল্লাহ আল ফারুক, যুবনেতা গাজী মোহাম্মদ নাছির উদ্দিন, মোহাম্মদ হাসান রেজা, মোহাম্মদ ফোরকান উদ্দিন, হাফেজ মোহাম্মদ মহিউদ্দিন, আরিফ হোসেন আজাদ, মিজানুর রহমান, কাউসার, পারভেজ। উল্লেখ্য, গত ২০১৩ সালের (২৬শে এপ্রিল) শুক্রবার হাটহাজারীতে আল্লামা গাজী ইমাম শেরে বাংলার মাজারে হামলা চালায় এমন খবর ছড়িয়ে পড়লে তৎক্ষণাত বাসস্ট্যান্ড চত্বরে বিশাল প্রতিবাদ ও বিক্ষোভ করে হাটহাজারী আহলে সুন্নাত ওয়াল জামাআত। এ বিক্ষোভে অংশগ্রহণ করেছিলেন মুহাম্মদ সাইফুল ইসলাম।

বিক্ষোভ থেকে ফেরার পথে উপজেলার ১১ মাইল এলাকায় হামলার শিকার হয় সাইফুল। গুরুতর আহত অবস্থায় তাকে নগরীর সার্জিস্কোপ হাসপাতালে ভর্তি করা হলে মৃত্যুর সাথে পাঞ্জা লড়ে এক সপ্তাহ পর অবশেষে (৩ এপ্রিল) চিকিৎসাধীন অবস্থায় তার মৃত্যু হয়। সাইফুল ইসলাম নগরীর জামিয়া আহমদিয়া সুন্নিয়া আলিয়া মাদ্রাসা ও ফতেপুর মঞ্জুরুল ইসলাম সিনিয়র মাদ্রাসার শিক্ষার্থী ছিলেন।

মো. সাহাবুদ্দীন সাইফ

0 Shares

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here