ভূমিদস্যুদের খুটির জোড় কোথায়

0
239
0 Shares

বগুড়া প্রতিনিধিঃ বগুড়ার নন্দীগ্রাম উপজেলার ভাটরা ইউনিয়নে সীমান্তবর্তী জোরদাহ ও পবনাতলা এলাকায় নাগর নদ থেকে স্থানীয় প্রভাবশালীরা অবৈধভাবে বালু উত্তোলন মহোৎসব চালিয়ে যাচ্ছে। বালু উত্তোলনের ফলে নদী-তীরবর্তী আবাদি জমি ও রাস্তা হুমকির মুখে পড়েছে। স্থানীয় জনসাধারণ ও আবাদি জমির মালিক কৃষকেরা ভূমিদস্যুদের কাছে অসহায় জানা যায়, উপজেলার ভাটরা ইউনিয়নে সীমান্তবর্তী নাগর নদীর জোরদাহ ও পবনা তলা এলাকায় হাতে গোনা বুলবুল,

জয়নালসহ কয়েকজন ভূূমিদস্যু শ্রমিক দিয়ে বালু ও মাটি কেটে অবাধে অবৈধ ব্যবসা চালিয়ে যাচ্ছে। এই বালু উত্তোলনের ফলে ওই এলাকার আবাদি জমি হুমকির মুখে পড়েছে। প্রতিদিন ট্রাকে অবৈধভাবে বালু বহনের কারণে রাস্তার মারাত্মক ভাবে ক্ষতিগ্রহস্থ হচ্ছে। ভূূমিদস্যুরা এলাকার প্রভাবশালী হওয়ায় স্থানীয়রা তাঁদের বিরুদ্ধে অভিযোগ তো দুরেই থাক, কথা বলতে সাহস পাচ্ছে না। এমন অবস্থা যেনো জোর যার মুল্লক তার। এই বালু উত্তোলনের মাধ্যমে একদল ভূমিদস্যুরা অবৈধ ভাবে অঢেল সম্পদের মালিক বনে গেছে।

ক্ষতি হচ্ছে আবাদি জমি ও রাস্তার। নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক তারা বলেন, কোনোভাবেই বন্ধ হচ্ছে না বালু ও মাটি উত্তোলন। এই বালু দিয়ে রাস্তাসহ বিভিন্ন ভরাট কাজের ব্যবসা চলছে। নাগর নদীতে গভীর করে মাটি কাটা ও বালু উত্তোলনের ফলে প্রতিবছরই বর্ষা মৌসুমে তার খেসারত দিতে হয় নদী সংলগ্ন জমির মালিকদের। ক্ষতি হয় ফসলি জমির, নদীগর্ভে যায় গাছপালা। স্থানীয়দের দাবী এই অবৈধভাবে বালু উত্তোলন বন্ধ করে ভূমিদস্যুদের আইনের আওতায় আনতে হবে।

আর প্রশাসনের কেউ এই চক্রের সঙ্গে জড়িত থেকে সুযোগ-সবিধা নিচ্ছেন কিনা, সে বিষয়টি ক্ষতিয়ে দেখার দাবি জানান তারা। নন্দীগ্রাম উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) মোছাঃ শারমিন আখতার এ প্রতিবেদক-কে বলেন, বিষয়ে আমাদের জানা ছিলোনা তবে আইনশৃঙ্খলা কমিটির মিটিং আলোচনা হয়েছে। দ্রুত মাটি ও বালু উত্তোলনকারীদের বিরুদ্ধে আইনি ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

জিএম মিজান / দৈনিক সংবাদপত্র 

0 Shares

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here