বাগেরহাটে নজাহান আলী মাজারে গোসল করতে নামলে কুমিরের সাথে লড়াইকরে বেঁচে ফিরেছে কিশোর রাকিব

0
146
0 Shares

বাগেরহাট প্রতিনিধিঃ
বাগেরহাটে শেখ রাকিব (১৫) নামের এক কিশোর খানজাহান আলী দিঘী‘র ঘাটে গোসল করতে নেমে কুমিরের হামলার শিকার হয়েছে। নিজের বুদ্ধিমত্তায় কুমিরের সঙ্গে লড়াই করে কুমিরের মুখ থেকে নিজেকে বাচাতে সক্ষম হয়েছে ওই কিশোর। রাকিব বাগেরহাটের খানজাহান আলী মাজার সংলগ্ন রনবিজয়পুর গ্রামের জাকির ছেলে। সে কে আলী দরগা মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের ৯ম শ্রেণির শিক্ষার্থী। সোমবার (১৬ মার্চ) মাজারের ঘাটে গোসল করতে নামলে একটি কুমিরের অতর্কিত আক্রমণে আহত হয় রাকিব। পরে তার বন্ধুরা তাকে উদ্ধার করে বাগেরেহাট সদর হাসপাতালে ভর্তি করে।
সোমবার দুপুরে স্কুল থেকে ফিরে খানজাহান আলী দিঘী‘র ঘাটে সিড়িতে গোসল করছিলাম। হাত-পা ও শরীরে পানি দিচ্ছিলাম। হঠাৎ একটি কুমির এসে আমার ডান পা কামড়ে ধরে গভীর পানিতে নিয়ে যাওয়ার জন্য চেষ্টা করে। আমি জীবন বাঁচাতে কুমিরের চোখ, নাখসহ মাথায় এলোপাথারি ঘুষি মারতে শুরু করি। এক পর্য্যায়ে কুমিরটি আমার পা ছেড়ে দেয়। আমি দৌড়ে উপরে উঠে আসি। সোমবার বিকেলে বাগেরহাট সদর হাসপাতালের বেডে শুয়ে থাকা কুমিরের কামড়ে আহত রাকিব এই প্রতিনিধিকে কথাগুলি বলে।
রাকিবের বোন জাকিয়া বলেন, দুপুরে প্রতিদিনের মত বন্ধুদের সাথে মাজারে গোসল করতে যায় রাকিব। সেখানে কুমিরে আক্রমন করে ওকে। আল্লাহ-ই আমার ভাইকে বাঁচিয়েছে। রাকিবের বন্ধু তাহছিন ফকির বলেন, গোসল করতে নামলে রাকিবকে কুমিরটি আক্রমণ করে। অনেক ধস্তাধস্তির পরে সে উপরে উঠে আসে। এসময় অনেক লোক জড় হয়। পরে আমরা রাকিবকে বাগেরহাট সদর হাসপাতালে নিয়ে আসি।
তাহছিন আরও বলেন, এখন কুমিরের ডিম পাড়ার সময়। আর ডিম পাড়ার সময় কুমির একটু হিংস্র হয়ে যায়। তাই হয়তো কুমিরটি রাকিবকে আক্রমণ করেছে। বাগেরহাট সদর হাসপাতালের জরুরি বিভাগের চিকিৎসক ফারহান আতিক বলেন, দুপুরে কুমিরের আক্রমণে আহত এক কিশোর হাসপাতালে আসেন। কুমিরের কামড়ের তার ডান পায়ের বিভিন্ন জায়গায় ক্ষত হয়ে গেছে। আমরা তাকে পর্যাপ্ত চিকিৎসা দিয়েছি। কিশোর রাকিব এখন সংঙ্কামুক্ত আছেন।

মাসুম হাওলাদার / দৈনিক সংবাদপত্র 

0 Shares

পোস্ট টি সম্পর্কে আপনার মতামত জানানঃ