পাইকগাছা কয়রার সড়ক একনেকে মহাসড়কে অনুমোদিত

0
242
0 Shares

খুলনা প্রতিনিধিঃ খুলনার ১৮ মাইল ভায়া পাইকগাছা হতে কয়রা পর্যন্ত রাস্তা বাক সরলী করণ ও রাস্তা উন্নয়ন প্রকল্প একনেকে অনুমোদন দেওয়ায় মাননীয় প্রধান মন্ত্রী দেশরত্ন শেখ হাসিনা,বঙ্গবন্ধুর ভ্রাতুষ্পুত্র শেখ হেলাল উদ্দীন (এমপি) ও খুলনা ০৬ আসনের মাননীয় সংসদ সদস্য আলহাজ্ব মোঃ আকতারুজ্জামান বাবু (এমপি) কে অভিনন্দন জানিয়ে পাইকগাছা আওয়ামীলীগ যুবলীগ,ছাত্রলীগসহ বিভিন্ন নেত্রী বিন্দু উপস্থিত থেকে আনন্দ মিছিল করেন।
পাইকগাছা,কয়রা,তালা ডুমুরিয়া সড়কটি আঞ্চলিক মহাসড়কে।রূপান্তরের প্রক্রিয়া শুরু করেছে বাংলাদেশ সড়ক বিভাগ।সেই সাথে সােজা করা হচ্ছে ৩০টি ঝুঁকিপূর্ণ বাঁক। ভাঙাচোরা সড়ক আর ঝুঁকিপূর্ণ বাঁক থেকে মুক্তি
পেতে যাচ্ছে ডুমুরিয়া,পাইকগাছা,তালা ও কয়রা উপজেলার ১৫ লক্ষাধিক মানুষ।খুলনার আঠারাে মাইল এলাকার বেতগ্রাম থেকে
কয়রার গােলখালী পর্যন্ত ৬৪ দশমিক ৬০ কিলােমিটার
সড়কটি আঞ্চলিক মহাসড়কে রূপান্তরের প্রক্রিয়া শুরু
করেছে সড়ক বিভাগ।পাশাপাশি এই সড়কের ৩০টি
ঝুঁকিপূর্ণ বাঁক সােজা করা হচ্ছে। এজন্য ৩৩৯ কোটি
৫৪ লাখ টাকার একটি প্রকল্প প্রি-একনেকে অনুমােদন
হয়েছে প্রকল্পটি সুন্দরবন ঘেঁষা দেশের সর্বদক্ষিণের উপজেলা কয়রা এর পাশেই পাইকগাছা,তার পরে তালা উপজেলা।এক সময় খুলনা নগরীর সঙ্গে কয়রা-পাইকগাছার যােগাযােগের মাধ্যম ছিল নৌ-রুট ১৯৯৯-২০০০ সালে
শিবসা ও কয়রা সেতু চালু হলে খুলনার সঙ্গে সরাসরি
যুক্ত হয় কয়রা উপজেলা।তখন জেলা সড়কের আদলে নির্মিত এই সড়কটিতে যানবাহনের চাপ বেড়ে যায়।খুলনার পাইকগাছা ছাড়াও সাতক্ষীরার তালা ও
আশাশুনি উপজেলায় যাতায়াতের সহজ মাধ্যম হয়ে।
ওঠে এই সড়ক। ফলে সড়কে যান চলাচল।অস্বাভাবিকভাবে বেড়ে যায়। এজন্য অল্প দিনের মধ্যে সড়কটি চলাচলের অনুপযােগী হয়ে পড়ে। কয়েক
বছর পর পর সড়কটি মেরামত করা হলেও অল্প দিনের মধ্যেই কিছু কিছু জায়গায় বড় বড় গর্ত তৈরি হয়। এতে প্রতি বছরই দুর্ভোগে পড়তে হয় এ চার
উপজেলার মানুষকে।
এ ছাড়া সড়কটিতে অসংখ্য ঝুঁকিপূর্ণ বাঁক রয়েছে।এর মধ্যে বেতগ্রাম পার হয়ে তেঁতুলিয়া মােড়, তালা বাজারের সামনের সড়কটিতে ৯০ ডিগ্রি কোণের।
বিশাল বাঁক রয়েছে। তালা বাজারের পরে গােনালী বাজার মােড়,একই উপজেলার ধাপের পুকুর,পাইকগাছা উপজেলার অনেকাংশে ও কয়রা উপজেলার লক্ষ্মীখােলা মােড়, একই উপজেলার সংগ্রামের মােড় সড়কটি ঝুঁকিপূর্ণভাবে বাঁক নিয়েছে।প্রায়ই এ সকল বাঁকে দুর্ঘটনা ঘটে।
এ ব্যাপারে খুলনা-৬ (পাইকগাছা ও কয়রা)আসনের সংসদ সদস্য মােঃআকতারুজ্জামান বাবু বলেন,সড়কটি স্থায়ীভাবে সংস্কার করা হলে কয়রা,পাইকগাছা,ডুমুরিয়া, সাতক্ষীরার তালা, আশাশুনি ও
শ্যামনগর উপজেলার প্রায় এক কোটি মানুষ উপকৃত হবে।

শাহরিয়ার কবির/ দৈনিক সংবাদপত্র

0 Shares

পোস্ট টি সম্পর্কে আপনার মতামত জানানঃ