পাইকগাছায় ঋনে জর্জরিত হয়ে যুবকের আত্তহত্যা

0
65
বিজ্ঞাপন

পাইকগাছা (খুলনা) প্রতিনিধিঃ দাদা-বৌদিরা, প্রনাম নিবেন। আমি চলে যাচ্ছি! আমার আদরের কন্যা কথা মনি ও স্ত্রীকে তোমারা দেখে রেখো। ওরা ভাল থাকলে আমি পরপারে ভালো থাকব” আবেগঘন এ চিঠি লিখে পাইক গাছায় ঋন-দেনায় জর্জ্জরিত হয়ে মিলন মন্ডল (৩৫) নামে এক যুবক আত্মহত্যা করেছেন। প্রতিবেশিরা বৃহস্পতিবার ভোর বেলায় বাড়ীর পাশ্বে জাম গাছে মিলনকে গলাঁয় রঁশি দেওয়া অবস্থায় ঝুলতে দেখে পুলিশের খবর দেন। সে উপজেলার গড়ইখালী ইউপি’র হোগলার চক গ্রামের বল্লভ মন্ডলের ছোট ছেলে।

পুলিশ ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছেন। পুলিশ ও নিহতের পারিবারিক সুত্র জানিয়েছেন, ১ শিশু কন্যা সন্তানের পিতা মিলন অভাব-অনাটনে পড়ে মৃত্যুর পুর্ব মুহুর্ত পর্যন্ত প্রায় ১০ লক্ষ টাকা দেনায় জড়িয়ে পড়েন। এলাকার বিভিন্ন ব্যক্তি ও সমিতি’র কাছ থেকে এ টাকা সুধে নেওয়া ছিল। জমি বিক্রি করে মিলন বড় অংকের এ টাকা পরিশোধ করতে চেয়ে ব্যর্থ হন। তার স্ত্রী কাকলী মন্ডল জানান, নানা কারনে স্বামী বেশ কিছুদিন ধরে টেনশনে ছিলেন। তিনি আরোও বলেন, মিলন বুধবার গভীর রাত পর্যন্ত কোপা আমেরিকা ফুটবল খেলা দেখে

বিজ্ঞাপন

ঘুমিয়ে পড়েন এবং বৃহস্পতিবার ভোর বেলায় বাড়ীর কাছে জাম গাছে গলাঁয় রশিতে ঝুলন্ত অবস্থায় তাঁর লাশ উদ্ধার করা হয়।। এদিকে মিলনের আত্মহত্যার খবর পেয়ে ইউনিয়ন প্যানেল চেযারম্যান আঃ সালাম কেরু, মেম্বর সহ অনেকেই নিহতের বাড়ীতে পৌছে স্বজনদের সমবেদনা জানান। এ সম্পর্কে বাইনবাড়ীয়া ক্যাম্প পুলিশের ইনচার্জ এসআই মনির হোসেন জানান, মিলন বহু টাকার দেনায় জর্জরিত ছিল। করোনাকালে পরিবার নিয়ে আরোও অসুভিধায় পড়েন। শেষ পর্যন্ত বড় ভাই নিরঞ্জন মন্ডল ও বৌদিদের উদ্দেশ্যে

একমাত্র শিশু কন্যা ও স্ত্রীর দেখা-শুনার অনুরোধ জানিয়ে নিজের পকেটে চিঠি লিখে আত্মহত্যা করেন। ঘটনা স্থল পরিদর্শনের কথা জানিয়ে ওসি ( অপারেশন) স্বপন কুমার রায় জানান, ধার-দেনা ও অভাব-অনাটনের টেনশনে পড়ে মিলন আত্মহত্যা করেছেন। তাঁর পরিবারের সকলে স্বীকার করেছেন সে কারনে মৃতদেহটি সৎকারের জন্য পরিবারের কাছে হস্তান্তর করা হয়েছে।

ইমদাদুল হক

বিজ্ঞাপন

মতামত দিন

Please enter your comment!
Please enter your name here