চীনে করোনাভাইরাসের প্রভাবে পাইকগাছা থেকে উৎপাদিত কাঁকড়া ও কুঁচে রপ্তানি বন্ধ

0
162
ফাইল ছবি
8 Shares

পাইকগাছা খুলনা প্রতিনিধিঃ  চীনে করোনাভাইরাসের কারণে বাংলাদেশ থেকে কুঁচে ও কাঁকড়া রপ্তানি বন্ধ থাকায় বিপাকে পড়েছে পাইকগাছার কয়েক হাজার চাষী ও ব্যবসায়ী। এর ফলে পাইকগাছায় উৎপাদিত কাঁকড়া ও কুঁচে রপ্তানি বন্ধ হওয়ায় ব্যবসায়ীরা আর্থিকভাবে ক্ষতিগ্রস্তÍ হচ্ছে। কয়েক হাজার পরিবার কষ্টে জীবনযাপন করছে বলে জানিয়েছেন কাঁকড়া ব্যবসায়ীরা।
করোনাভাইরাস আক্রমনের ফলে গত ২৫ জানুয়ারি থেকে চীনে রপ্তানী হচ্ছে না কাঁকড়া ও কুঁচে। ফলে কাঁকড়া ও কুঁচে আহরোন থেকে রপ্তানির সঙ্গে সম্পৃক্ত কয়েক মানুষ বিপাকে পড়েছেন। পাইকগাছার কুঁচে ও কাঁকড়া ব্যবসায়িরা ঢাকার রপ্তানিকারকদের কাছে কয়েক কোটি টাকা আটকে গেছে। একদিকে ব্যবসা বন্ধ, অপরদিকে স্থানীয় ক্ষুদ্র ব্যবসায়ীদের পাওনা টাকা দিতে না পেরে বিপাকে পড়েছেন কাঁকড়া ও কুঁচে ডিপো মালিকরা। তাছাড়াও মজুদকৃত কাঁকড়া-কুঁচে বিক্রয় করতে না পারায় চরম হতাশায় ভুগছেন চাষিরা।
জানা গেছে, দেশের কুঁচে ও কাঁকড়া রপ্তানি হয় চীন, ভিয়েতনাম, ফিলিপাইন ও সিঙ্গাপুরসহ বিভিন্ন দেশে। এরমধ্যে ৯০ শতাংশ কুঁচে ও কাঁকড়া রপ্তানি হয় চীনে। যার সিংহভাগ উৎপাদন হয় সাতক্ষীরা ও খুলনা জেলায়।
গত ২৫ জানুয়ারি থেকে রপ্তানি বন্ধ থাকায় সংগ্রহ করা কুঁচে ও কাঁকড়া মরে যাওয়ায় আর্থিকভাবে ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছেন ব্যবসায়ীরা। এদিকে, ব্যবসা বন্ধ হয়ে যাওয়ায় স্থানীয় ক্ষুদ্র ব্যবসায়ীদের পাওনা দিতে না পারছে না আড়ৎদাররা। কাঁকড়া ও কুঁচে রপ্তানি না হওয়ায় সরকারও রাজস্ব থেকে বঞ্চিত হচ্ছে।
পাইকগাছা কাঁকড়া ব্যবসায়ী সমবায় সমিতির লি. এর সভাপতি দেবব্রত দাশ দেবু বলেন, চীনে কাঁকড়া ও কুঁচে রপ্তানি না হলে পুজি হারিয়ে বেকার হবে এ ব্যবসার সাথে জড়িত হাজার হাজার মানুষ। চীন ছাড়া অন্য দেশে কাঁকড়া ও কুঁচে রপ্তানি করার বাজার সৃষ্টি করার জন্য সরকারের সুদৃষ্টি কামনা করেছেন ব্যবসায়ী ও চাষীরা।

ইমদাদুল হক / দৈনিক সংবাদপত্র 

8 Shares

পোস্ট টি সম্পর্কে আপনার মতামত জানানঃ