চাচির ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে দায়ের করা মামলায় ভাতিজা গ্রেফতার

0
37
0 Shares

বগুড়া প্রতিনিধিঃ বগুড়া শহরের একটি পত্রিকা অফিসে কর্মরত ভুক্তভোগী এক নারীর নামে কে বা কাহারা তাহার নাম ও ছবি ব্যবহার করে তাহার চারিত্রিক বিষয়ের মিথ্যা, বানোয়াট ও কাল্পনিক কথা তুলে ধরে জঘন্য ভাষায় একটি মেইল বগুড়ার সাংবাদিকদের ইমেইলে পাঠায়। বগুড়া সদর থানায় লিখিত অভিযোগ দিলে বগুড়া সদর থানার মামলা নং-৬২, তারিখ- ২৫ই জুন, ২০২১ ধারা- ডিজিটাল নিরাপত্তা আইন, ২০১৮ এর ১৮ (১)/২৫ (১)(ক) / ২৯(১), রুজু হয়। মামলার তদন্তভার দেওয়া হয় জেলা পুলিশের সাইবার ইউনিটে।

পরে পুলিশের সাইবার ইউনিট তথ্য প্রযুক্তির ভিত্তিতে অভিযান চালিয়ে মির্জা শামীম হাসানকে ১লা জুলাই ২১ইং রোজ বৃহস্পতিবার ঢাকা মহানগরীর, হাতিরঝিল থানাধীন, ২১১/বি উলন, পশ্চিমরামপুরা এর ভাড়া বাসা হইতে আসামীকে গ্রেফতার করা হয়েছে। গ্রেফতারকৃত মির্জা শামীম হাসান, পিতা মির্জা সেলিম রেজা, বর্তমান ঠিকানাঃ ২১১/বি, উলন, পশ্চিম রামপুরা, ঢাকা ১২১৯, অস্থায়ী ঠিকানাঃ গ্রাম ছিলিমপুর, থানা ও জেলা বগুড়া, স্থায়ী ঠিকানাঃ গ্রাম জোরগাছা, থানা সারিয়াকান্দি, জেলা বগুড়া।

গ্রেফতারকৃত আসামীর হেফাজত হতে উদ্ধারকৃত আলামতঃ একটি কালো রংয়ের মোবাইল ফোন, একটি সাদা রংয়ের বাটন মোবাইল ফোন ও একটি ডেস্কটপ কম্পিউটার মনিটরসহ। গ্রেফতারকৃত প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে জানায় যে, বাদিনী সম্পর্কে তার চাচিমা। তার চাচা ঢাকায় চাকুরি করে এবং চাচি বগুড়া শহরস্থ একটি পত্রিকা অফিসে কাজ করে। গ্রেফতাকৃত আসামী তার চাচিকে মনে মনে পছন্দ করতো বিষয়টি তার চাচি জানতে পার লে আসামীর সহিত যোগাযোগ বন্ধ করে দেয়। ফলে আসামী চাচীর উপর ক্ষিপ্ত হয়ে বগুড়া শহরের সাংবাদিক দের ইমেইলএ্যাড্রেস সংগ্রহ করিয়া তাহার চাচির নাম

ও ছবি ব্যবহার করে তাহার চারিত্রিক বিষয়ের মিথ্যা, বানোয়াট ও কাল্পনিক কথা তুলে ধরে জঘন্য ভাষায় একটি মেইল তাদের ইমেইলে পাঠিয়ে দেয়। গ্রেফতারকৃতর উদ্দেশ্য ছিল উক্ত মেইলের কারনে তার চাচা-চাচির সম্পর্ক নষ্ট হয়ে গেলে সেই সুযোগে সে ভিকটিমকে তার কাছে ঢাকায় নিয়ে যাবে। আসামীর জব্দকৃত ডিভাইস গুলো পর্যালোচনা করে দেখা যায় যে, আসামীর ডিভাইসে এজাহারে উল্লেখিত ইমেইল ও সেই ইমেইল হতে বগুড়া জেলার সাংবাদিকদের ইমেইলে তাহার চাচিমার চারিত্রিক বিষয়ের মিথ্যা,

বানোয়াট ও কাল্পনিক কথাবার্তা লিখে মেইল পাঠানোর তথ্য প্রমান পাওয়া যায়। এছাড়াও আসামী শামীম বিভিন্ন সময়ে কু-কর্মে ব্যবহারের উদ্দেশ্যে বিভিন্ন নামে ৯৬টি ইমেইলএ্যাড্রেস খোলে যাহা তার কম্পিউটারের ফাইলে সংরক্ষণ করা আছে। এ ছাড়াও গ্রেফতারকৃত নিজেকে কখনো ইঞ্জিনিয়ার, কখনো আইনজীবী, কখনো লেখক, আবার কখনো সাংবাদিক বলে পরিচয় দেয় এবং সমাজের অনেক বড় বড় পদের লোকজনের সাথে তার,অবাধ চলাফেরা ও বন্ধুত্ত পূর্ণ সম্পর্ক আছে বলেও দাবি করে। গ্রেফতারকৃত আসামী মির্জা শামীম হাসান নর্থ সাউথ ইউনিভার্সিটিতে এর অষ্টম সেমিষ্টারে অধ্যয়নরত বলে প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে জানা যায়।

গ্রেফতারকৃত আসামীকে উল্লেখিত মামলায় বিজ্ঞ আদালতে প্রেরন করা হইবে। বগুড়া জেলা গোয়েন্দা পুলিশের সাইবার ইউনিটের পুলিশ পরিদর্শক মোঃ এমরান হোসেন তুহিন এ প্রতিবেদক-কে বলেন, গ্রেফতারকৃত আসামী কে উল্লেখিত মামলায় বিজ্ঞ আদালতে প্রেরন করা হইবে।

জিএম মিজান

0 Shares

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here