গাজীপুর সিটি হওয়ার পর থেকে উন্নয়নের ফাঁদে জনগন

0
218
ফাইল ছবি

গাজীপুর প্রতিনিধিঃ গাজীপুর সিটি হওয়ার পর থেকে পাঁচ বছর ধরে সিটির প্রতিটি রাস্তার অবস্থা খুবই নাজুক। বিগত ছয় বছর জনগণের ভোগান্তির শেষ ছিলনা। চন্দ্রা, কোনাবাড়ী ফ্লাইওভার চালুর পর থেকে গাজীপুর-টাঙ্গাইল মহাসড়কের ব্যস্ততা, জ্যাম, জনগণের ভোগান্তি অনেকটাই লাঘব হয়েছে। বিভিন্ন ওয়ার্ডের রাস্তাগুলোর সংস্কার বা উন্নয়ন কাজও চলছে। সেই উন্নয়নের মধ্যেই ঘটছে বিপত্তি।
গাজীপুর সিটির কাশিমপুর থানার প্রধান দুটি সড়ক কাশিমপুর টু জিরানি এবং কাশিমপুর টু শ্রীপুর রোড।
কাশিমপুর টু জিরানি রোডটি গত চার বছর আগে শুরু হয়ে এখনো থেমে থেমে চলছে । যতই দিন যাচ্ছে জনগণের ভোগান্তি ততই বাড়ছে। চার বছর হলেও ড্রেনের কাজ এখনো শেষ করতে পারেনি। এর মাঝেই শুরু হয়েছে মূল রাস্তা সম্প্রসারনের কাজ। দুটি রাস্তাই ৬০ ফিট করার কথা থাকলেও রাস্তাটি করা হচ্ছে ২০ ফিট। এরই মধ্যে মূল কাজের অর্ধেক শেষ। অর্ধেকের মূল কাজ শেষ হতেই শুরু হয়েছে জনগণের মূল সমস্যা। মাঝখানে ৩ফিট জায়গা রেখে ২০ ফিট রাস্তাকে আবার দুটি ভাগে (লেনে) ভাগ করা হয়েছে। এর এক লেনের মাঝ বরাবর আবার বৈদ্যুতিক খুঁটি রেখেই রাস্তার সিসি ঢালাই সম্পন্ন করা হয়েছে। কাশিমপুর থানার ৩ ও ৪ নং ওয়ার্ড ঘুরে দেখা গেছে, যে কয়েকটি রাস্তার কাজ সম্পন্ন হয়েছে প্রতিটি রাস্তা ও ড্রেনের মাঝেই বৈদ্যুতিক খুঁটি রয়েগেছে। রাস্তার মাঝে খুঁটির কারণে যান চলাচলের যেমন ব্যঘাত ঘটছে, ড্রেনের মাঝে খুঁটির কারণে মানুষের চলাচলেরও তেমন ব্যঘাত ঘটছে। ড্রেনের মাঝের খুঁটিগুলো রয়েছে তলাহীন মাটিতে ঝুলন্ত ভাবে বিপজ্জনক অবস্থায়। এই রাস্তায় যাতায়াতকারী ফায়জুল করিম নামে এক ছাত্র বলেন,রাস্তার উন্নয়ন কাজের জন্য দীর্ঘ দিন যানচলাচল বন্ধ অবস্থায় আমরা দেড়/ দুই কিলোমিটার হেঁটে স্কুলে যাচ্ছি। উন্নয়নের সুফল পেতে আমরা ক্ষনিকের কষ্টকে স্বীকার করে নিয়েছি। কিন্তু এর চেয়ে বড় কষ্টের প্রহর আমাদের গুনতে হচ্ছে। এই রাস্তা দিয়ে গার্মেন্টসের অসংখ্য ভারী যানবাহন চলাচল করে। যেকোন যানের আঘাতে ভেঙ্গে যেতে পারে খুঁটি, বৈদ্যুতিক তার পরে ঘটতে পারে মারাত্বক দূর্ঘটনা। একটি দূর্ঘটনা না ঘটা পর্যন্ত কর্তৃপক্ষের যেমন টনক নড়বে না। টনক নড়ার পর খুঁটি সরাতে হয়তো আবার ভাঙ্গা হবে রাস্তা ও ড্রেনগুলে। ভোগান্তি নিয়ে আবার শুরু হবে আমাদের পথ চলা। সিটি কর্পোরেশন এবং পল্লী বিদ্যুৎ কর্মকর্তাদের সমন্বয়ের অভাবেই এমনটা ঘটেছে বলে এলাকাবাসী মনে করেন।
রাস্তার কাজের সাথে সাথে বৈদ্যুতিক খুঁটিগুলো সরানো হলে জনগনের ভোগান্তি যেমন কম হতো, দূর্ঘটনার আশংকা থেকেও জনগন মুক্তি পেত। ৩ নং ওয়ার্ডের কাউন্সিলর এ বিষয়ে বলেন, পল্লী বিদ্যুৎ অফিসে বিষয়টি জানানো হয়েছে, অতিদ্রুত রাস্তা থেকে খুঁটি সরিয়ে রাস্তার পাশে স্থাপন করা হবে। এত বছর পর রাস্তার উন্নয়ন হলেও সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের উদাসিনতায় সরকারের উন্নয়নের সুফল ভোগ করা নিয়ে অনিশ্চয়তায় আছে এই এলাকার জনগন।

তারিকুল ইসলাম জুয়েল / দৈনিক সংবাদপত্র 

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here